President

রাজধানীর গুলশানের কূটনৈতিক এলাকায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন উচ্ছেদ অভিযান চালাচ্ছে। আজ বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে রাশিয়ান দূতাবাসের পাশের ফুটপাত ঘিরে রাখা বেড়া এবং রাস্তাজুড়ে রাখা ফুলের গাছ সরানো হয়।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক বলেন, ‘আমরা এটাকে উচ্ছেদ বলব না। সড়ক এবং ফুটপাত আমরা উন্মুক্ত করছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘দূতাবাসগুলোর সঙ্গে আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতেই আমরা তাদের বুঝিয়েছি, এটা জনগণের রাস্তা। জনগণের ফুটপাত। এখান দিয়ে হাঁটা তাদের সাংবিধানিক অধিকার। তারা বিষয়টি বুঝেছে।’

দূতাবাসগুলোর নিরাপত্তার বিষয়টিও আশ্বস্ত করা হয়েছে বলে মেয়র জানান। তিনি বলেন, সর্বাগ্রে জনগণের অধিকারের দিকে নজর দিতে হচ্ছে।


গুলশানের রাশিয়ান দূতাবাসের পাশের সড়কটিতে থাকা সীমানা প্রাচীরের অংশ ও ফুলের টব সরিয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। ছবিটি আজ বৃহস্পতিবার সকালে তোলা। ছবি: আবদুস সালামগুলশানের রাশিয়ান দূতাবাসের পাশের সড়কটিতে থাকা সীমানা প্রাচীরের অংশ ও ফুলের টব সরিয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। ছবিটি আজ বৃহস্পতিবার সকালে তোলা। ছবি: আবদুস সালামরাজধানীর গুলশানের কূটনৈতিক এলাকায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন উচ্ছেদ অভিযান চালাচ্ছে। আজ বৃহস্পতিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে রাশিয়ান দূতাবাসের পাশের ফুটপাত ঘিরে রাখা বেড়া এবং রাস্তাজুড়ে রাখা ফুলের গাছ সরানো হয়।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক বলেন, ‘আমরা এটাকে উচ্ছেদ বলব না। সড়ক এবং ফুটপাত আমরা উন্মুক্ত করছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘দূতাবাসগুলোর সঙ্গে আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতেই আমরা তাদের বুঝিয়েছি, এটা জনগণের রাস্তা। জনগণের ফুটপাত। এখান দিয়ে হাঁটা তাদের সাংবিধানিক অধিকার। তারা বিষয়টি বুঝেছে।’

দূতাবাসগুলোর নিরাপত্তার বিষয়টিও আশ্বস্ত করা হয়েছে বলে মেয়র জানান। তিনি বলেন, সর্বাগ্রে জনগণের অধিকারের দিকে নজর দিতে হচ্ছে।

গুলশানের রাশিয়ান দূতাবাসের পাশের সড়কে থাকা ফুলের টব সরানো হচ্ছে। ছবি: আবদুস সালামগুলশানের রাশিয়ান দূতাবাসের পাশের সড়কে থাকা ফুলের টব সরানো হচ্ছে। ছবি: আবদুস সালামরাশিয়ান দূতাবাসের পর সৌদি আরবের দূতাবাসের পাশে উচ্ছেদ অভিযান চলবে। সৌদি দূতাবাসের সীমানাপ্রাচীরের পাশেও একইভাবে রাস্তা দখল করে বিভিন্ন স্থাপনা রয়েছে।

মেয়র আনিসুল হক আরও বলেন, ‘এটা আমাদের অব্যাহত প্রক্রিয়া। দূতাবাসের যে তল্লাশিচৌকিগুলো রাস্তা দখল করে আছে, সেগুলোও সরিয়ে নিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।’

গুলশানের রাশিয়ান দূতাবাসের পাশের সড়কে থাকা ফুলের টব ও সীমানা প্রাচীরের একাংশ সরানো হচ্ছে। ছবি: আবদুস সালামগুলশানের রাশিয়ান দূতাবাসের পাশের সড়কে থাকা ফুলের টব ও সীমানা প্রাচীরের একাংশ সরানো হচ্ছে। ছবি: আবদুস সালামপাশের রাস্তা ও ফুটপাত আটকে বেশ কিছু স্থাপনা রেখেছে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল স্কুল কর্তৃপক্ষ। সেটিও সরিয়ে নিতে বলা হয়েছে বলে জানান মেয়র আনিসুল হক। তিনি জানান, স্কুল কর্তৃপক্ষ স্থাপনাগুলো ছুটির পর সরিয়ে নেবে বলে জানিয়েছে।


১৯ এপ্রিল, ২০১৭ ২১:০৭ পি.এম